ভারতজুড়ে মোদি বিরোধী ধর্মঘট

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৮, ২০২০; সময়: ৭:২২ অপরাহ্ণ |
ভারতজুড়ে মোদি বিরোধী ধর্মঘট

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ভারতে মোদি সরকারের জনবিরোধী ও শ্রমিক বিরোধী নীতির প্রতিবাদে দেশজুড়ে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে কেন্দ্রীয় শ্রমিক ইউনিয়ন। বুধবার সকাল থেকে ২৪ ঘণ্টার এই কর্মসূচিতে সমর্থন জানিয়ে অংশ নিয়েছে ব্যাংক কর্মীরা ও বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের ৬০টিরও বেশি সংগঠন। শ্রমিকরা জানিয়েছে, কেন্দ্রীয় নীতি ও শ্রমিক আইনের ফলে ৮০ কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। বিজেপির শ্রমিক সংগঠন ভারতীয় মজদুর সঙ্ঘ এই বন্ধে অংশ নিচ্ছে না।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের তথ্য মতে, শ্রমিকদের এ ধর্মঘটে ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য পশ্চিবঙ্গের কলকাতায় ট্রেন যোগাযোগ ব্যাহত হয়েছে; বেশকিছু শহরের দোকানপাট ও ব্যাংক বন্ধ ছিল।

পশ্চিমবঙ্গ, কেরালাসহ একাধিক রাজ্যে বাস, টেক্সি ও অটোরিকশা চলাচল বন্ধ থাকলেও রাজধানী দিল্লি ও ব্যবসায়িক রাজধানী খ্যাত মুম্বাইয়ে ধর্মঘটের তেমন একটা প্রভাব পড়েনি বলেও জানা গেছে।

অল ইন্ডিয়া ব্যাংক এমপ্লয়িজ এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সি এইচ ভেঙ্কটাচালাম বলেছেন, মোদি সরকার ১০টি ব্যাংককে একীভূত করে ৪টিতে নামিয়ে আনার যে প্রস্তাব করেছে তাতে অনেকেই চাকরি হারাবেন। তাছাড়া ব্যাংকগুলো থেকে মন্দ ঋণ পুনরুদ্ধারের হার কমবে, এর ফলে সরকারের অন্তত ১৪ হাজার কোটি ডলার ক্ষতি হবে বলেও আশঙ্কা তার।

মোদি সরকারকে পরামর্শ দিয়ে ট্রেড ইউনিয়ন এই নেতা বলেন, শ্রমিকদের বেতনভাতা বাড়ানোর মাধ্যমে পণ্য ক্রয়ে চাহিদা বৃদ্ধির মাধ্যমে সরকার পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটাতে পারবে।

তথ্য মতে, এশিয়ার তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির এ দেশটি গত কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ মন্দা পার করছে। বিদেশি বিনিয়োগে ঘাটতি এবং পণ্য ক্রয়ে চাহিদা কমতে থাকায় এ বছর দেশটির প্রবৃদ্ধির হার ৫ শতাংশের মতো হবে; যা গত ১১ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে নির্মাণ ও উৎপাদন খাতের লাখো শ্রমিক চাকরি হারিয়েছেন; ঋণগ্রস্ত কোম্পানিগুলো তাদের বিনিয়োগ পরিকল্পনা কাটছাঁট করতে বাধ্য হচ্ছে।

দেশটিতে গত বছর ডিসেম্বরে বেকারত্বের হার বেড়ে ৭ দশমিক ৭ শতাংশে পৌঁছে যায়। ২০১৯ এর শুরুতেও এ হার ছিল ৭ শতাংশ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে