রাজশাহীতে চাঁদা না পেয়ে মুক্তিযোদ্ধাকে পেটালো যুবলীগ নেতা

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৫, ২০২০; সময়: ১০:৩০ অপরাহ্ণ |
রাজশাহীতে চাঁদা না পেয়ে মুক্তিযোদ্ধাকে পেটালো যুবলীগ নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীতে ১০ লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় মুক্তিযোদ্ধা ও তার পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার বেলা ১১ টার দিকে নগরের মেহেরচন্ডি দায়রাপাঁক এলাকার এ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা ও তার ছেলে গুরুতর আহত হয়েছেন। আহত পিতা-পুত্রকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত মুক্তিযোদ্ধার নাম ওয়াহেদ উদ্দিন (৬৩) ও তার ছেলের নাম নাহিন ইসলাম। আর হামলাকারি যুবলীগ নেতার নাম আসাদ আলী। সে ২৬ নম্বর ওয়ার্ড (পূর্ব ) যুবলীগের সভাপতি। এ ঘটনায় থানা মামলা দায়ের করা হলে হামলাকারি যুবলীগ নেতা ও তার সহযোগিরা গা ঢাকা দেয়। ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে চন্দ্রিমা থানায় হত্যা প্রচেষ্টাসহ চাঁদাবাজির একটি মামলা হয়েছে। ঘটনা জানান পর ওই মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আশ^াস দিয়েছেন তিনি।

মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহেদ উদ্দিনের পরিবার ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বছর খানেক আগে মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহেদ উদ্দিন মেহেরচন্ডী দায়রাপাঁক এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা রাসেলের মায়ের কাছ থেকে তিন কাঠা জমি ক্রয় করেন। সেখানে মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহেদ উদ্দিন বাড়ি নির্মাণের আলোচনা করেন। এর পর রাসেল ও তার চাচা যুবলীগ নেতা আসাদ আলী ওই মুক্তিযোদ্ধার করাছে ১০ লাখ চাঁদা দাবি করে। আর টাকা না দিলে বাড়ি বানানোর সমস্ত ইট ও বালু আসাদের কাছ থেকে ক্রয় করতে হবে বলে হুমকি দেয়।

এদিকে, শনিবার সকালে মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহেদ উদ্দিন বাড়ি তৈরীর জন্য ট্রাকে করে ইট নিয়ে আসে। এ সময় রাসেল এবং তার চাচা যুবলীগ নেতা আসাদ গিয়ে ইট নামাতে বাধা দেয়। এ সময় দারা ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহেদ চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধর শুরু করে। এসময় মুক্তিযোদ্ধা গুরুতর আহত হন ও তার নাক দিয়ে রক্ত ঝরে। এ সময় বাধা দিতে গেলে তার ছেলে নাহিনকে চাকু দিয়ে আঘাত করা হয়।

নাহিন ইসলাম বলেন, জমি কেনার পর থেকেই স্থানীয় যুবলীগের সভাপতি আসাদ ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিলেন। নয়তো তার কাছ থেকে বাড়ি তৈরির ইট ও বালু নেয়ার জন্য নানা ভাবে হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছিল। আমরা কখনোই তাদের এমন অন্যায় দাবিকে প্রশ্রয় দেইনি।

চন্দ্রিমা থানার ওসি সিরাজুম মুনির বলেন, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের উপর হামলা অভিযোগে আসাদ ও রাসেল নামের দুইজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে তারা দুইজন গা ঢাকা দিয়েছে। তাদের ধরতে পুলিশ কাজ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে