এক বছরেও শুরু হয়নি ২৫ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণের কাজ

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৮, ২০২০; সময়: ৩:২১ অপরাহ্ণ |
এক বছরেও শুরু হয়নি ২৫ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণের কাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বড়াইগ্রাম : নাটোরের বড়াইগ্রামে বিভিন্ন সড়ক পাঁকা করণ কাজের কার্যাদেশ পাওয়ার পর মেয়াদ শেষের পথে তবু এখনো শুরুই করেনি ২৫ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণের কাজ। ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকার লাখো মানুষকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। আর কাজ গুলো মাত্র তিনজন ঠিকাদারের কব্জায় রয়েছে। যাদেরকে উপজেলা প্রকৌশলীর দপ্তর থেকে বারংবার তাগাদা দিয়েও কোন ফল পাওয়া যাচ্ছে না। সম্প্রতি উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভায় এমন চিত্র তুলে ধরেন স্থাণীয় জনপ্রতিনিধিরা।

উপজেলা প্রকৌশলীর দপ্তর সূত্রে জানা যায়, নাটোরের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স ইসলাম কন্সট্রাকশন চান্দাই হাট থেকে সাহেব বাজার পর্যন্ত ২ কিলোমিটার, কয়েন থেকে মশিন্দা পর্যন্ত ১.১ কিলোমিটার, জোনাইল থেকে ইন্দ্রাপাড়া পর্যন্ত ২ কিলোমিটার, চান্দাই কাশেম সরকারের বাড়ি থেকে চিকনাই নদী পর্যন্ত .৫ কিলোমিটার, মেসার্স এমএন ট্রেডার্স বাগডোব হাট থেকে বনপাড়া অভিমুখে ২ কিলোমিটার, চৌমুহান থেকে দিঘইর অভিমুখে ২.১৫ কিলোমিটার, খাকসা তেতুল তলা থেকে দিঘলকান্দি অভিমুখে ১.৮ কিলোমিটার এবং গুরুদাসপুরের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স আনোয়ার ট্রেডার্স নিজ নামের ৪টি কাজের ৮ কিলোমিটার ও অন্যদের থেকে কিনে নেয়া ৫ কিলোমিটার সড়ক পাঁকা করণ কাজের কার্যাদেশ পেয়েছেন গত বছর মার্চ মাসে। উক্ত কার্যাদেশের মেয়াদ চলতি জানুয়ারী মাসেই শেষ হয়ে যাবে। তারা কাজ শুরু না করে এখন প্রকৌশলীর দপ্তরে ঘুরছেন মেয়াদ বৃদ্ধি করার জন্য।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য মেসার্স ইসলাম কন্সট্রাকশনের পার্টনার সোহেল রানা ও এমএ ট্রেডার্সের পরিচালক মীর্জা খোকনের সাথে কথা বলতে তাদের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি। আর আনোয়ার ট্রেসার্সের পরিচালক আনোয়ার হোসেন বলেন, বিভিন্ন কারনে দেরি হয়েগেছে। চলতি সপ্তহের মধ্যেই কাজ শুরু করাবো।

উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুর রহিম বলেন, ঠিকাদারগণ বার বার প্রতিশ্রুত ভঙ্গ করছেন। ফলে কার্যাদেশের মেয়াদ শেষ হলেও কাজ শুরু হচ্ছে না।

এলজিইডি নাটোরের নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম বলেন, সকল উপজেলা প্রকৌশলীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে কার্যাদেশ পাওয়া ঠিকাদারদেরকে চিঠি দিয়ে অবগত করতে। তারা দ্রুত কাজ শুরু না করলে প্রয়োজনে কার্যাদেশ বাতিল করে পুনরায় দরপত্র আহ্বান করা হবে।

স্থাণীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ঠিকাদারদের কারনে উন্নয়ন কর্মকান্ড বাধাগ্রস্থ হচ্ছে এতে সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। এটা মানা যায় না। এসময় তিনি, দোষীদের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নিয়ে প্রয়োজনে পুনরায় দরপত্র আহ্বানের নির্দেশ দেন ।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে