পরিচ্ছন্ন নওগাঁ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে সেচ্ছায় কাজ করে যাচ্ছে বিডি ক্লীন নওগাঁর পরিচ্ছান্ন যোদ্ধারা

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৩০, ২০২০; সময়: ৫:০৩ অপরাহ্ণ |
পরিচ্ছন্ন নওগাঁ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে সেচ্ছায় কাজ করে যাচ্ছে বিডি ক্লীন নওগাঁর পরিচ্ছান্ন যোদ্ধারা

নিজস্ব প্রতিবেদক, নওগাঁ : পরিচ্ছন্ন ও জীবাণুমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে অবিরাম কর্মরত স্বেচ্ছাসেবী সচেতন নাগরিকের প্লাটফর্ম এর নাম বিডি ক্লিন। ২০১৯ সালের ১৩ই ডিসেম্বর নওগাঁ জেলাকে পরিচ্ছন্ন ও জীবাণুমুক্ত করে গড়ার লক্ষ্যকে সামনে রেখে স্বেচ্ছাসেবী এবং সাধারন মানুষকে সচেতন করার কাজ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে সাথে নিয়ে বিভিন্ন ইভেন্টের মাধ্যমে করে যাচ্ছেন সমন্বয়ক বিডি ক্লিন নওগাঁর মারুফ রুসাফি ও তার টিম । শিক্ষার্থীদের এমন কার্যক্রম দেখে সুশিল সমাজ থেকে শুরু করে সাধারন মানুষ পর্যন্ত সকলে তাদের ধন্যবাদ এবং স্বাগত জানিয়েছেন।

“পরিচ্ছন্ন নওগাঁ গড়া ও মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা যাতে সাধারন মানুষ যত্রতত্র ময়লা আবর্জনা না ফেলে” এই মিশনকে সামনে রেখে সেচ্ছায় নিজ উদ্যোগে কাজ করে যাচ্ছে পরিচ্ছান্ন যোদ্ধারা। নওগাঁ শহরের অপরিচ্ছন্ন পরিচ্ছন্ন ব্যাবস্থা এবং পৌরসভার কর্মকান্ডে শহরের সকল রাস্তা ঘাট থেকে শুরু স্কুল কলেজ সর্বোস্তরের জায়গায় ময়লা আবর্জনা পড়ে থাকে। শহরবাসীর দাবী পৌরসভায় পরিচ্ছনতা কর্মী থাকলেও নেই তাদের পরিষ্কার রাখার কাজ। ময়লা আবর্জনা শহরের রাস্তায় পড়ে থাকলেও প্রতিদিনের কাজ না করায় ২-৩দিন পর পৌরসভায় জানালে তারা আবর্জনা নিয়ে যায়। এই দুর্ভোগ থেকে বাচতে শিক্ষার্থীদের এমন উদ্যোগ নওগাঁ পৌরসভাকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেবার মত বলে মনে করেন সাধারন মানুষ এবং সুশিল সমাজ ।

পরিচ্ছন্ন ও জীবাণুমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে অবিরাম কর্মরত স্বেচ্ছাসেবী সচেতন নাগরিকের প্লাটফর্ম এর নাম বিডি ক্লিন একটি স্বেচ্ছাসেবী ও অরাজনৈতিক সংগঠন। ৩ জুন, ২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত “পরিচ্ছন্নতা শুরু হোক আমার থেকে “শ্লোগানকে সামনে রেখে এই সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা প্রধান সমন্বয়ক ফরিদ উদ্দিন । নওগাঁয় প্রথম ইভেন্টে ৩০ জন কে সাথে নিয়ে কাজ শুরু করলেও বর্তমানে তাদের টিমের সদস্য সংখ্যা ৬০জন। তাদের কার্যক্রম এবং কাজের গতিশিলতা দেখে স্কুল কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এগিয়ে আসছেন তাদের ইভেন্টে যোগদান করতে। তাদের টিমে রয়েছেন নওগাঁ সরকারী কলেজের ছাত্র-ছাত্রী, রয়েছেন নওগা মেডিক্যাল পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রী। শিক্ষার্থীরা নিজেদের অর্থায়নে পরিচ্ছন্নতার উপকরন ঝাড়ু-ঝাটা, বেলচা , সেপ্টি মাসক সহ উপকরন সমুহ সংগ্রহ করে চালিয়ে নিচ্ছেন তাদের কাজ। প্রশাসন, পৌরসভা, জেলা পরিষদ, সুশিল সমাজের সহায়তা পেলে তাদের এই পরিচ্ছনতা অভিযান আরোও বেগবান হবে বলে দাবী শিক্ষার্থীদের।

শিক্ষার্থীরা সামাজিক দ্বায়বধ্যতা থেকে ইভেন্টের মাধ্যমে পরিচ্ছন্নতার কাজ করতে পেরে তারা নিজেরাও উচ্ছসিত এবং আনন্দিত। শিক্ষার্থীদের পরিবারের সহযোগীতা এবং পরিচ্ছান্ন শহর গড়ার লক্ষ্যে তাদের এই কাজ তারা আনন্দ এবং উতসাহের সহিত করছেন বলে জানিয়েছে ক্ষুদে শিক্ষার্থী।

শিক্ষার্থীরা পড়াশুনার পাশাপাশি ছুটির দিনে এমন ইভেন্ট করে থাকেন। তাদের কার্যক্রম দেখে এবং সাধারন মানুষদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা আবর্জনা ফেলার বিষয়ে সামাজিক কাজ তারা করে থাকেন। শিক্ষার্থীরা মনে করেন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন স্থানে সাধারন মানুষ সহসায় ময়লা আবর্জনা ফেলতে পারেন না। তাই সবসময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকলে পরিবেশ সুন্দর থাকবে ।

১৭ই জানুয়ারি শুক্রবার বিডি ক্লীন নওগাঁর পরিচ্ছন্ন যোদ্ধারা শহরের ব্যাস্ততম এলাকা বালুডাঙ্গা বাসস্টান্ডে পরিচ্ছন্নতার কাজ করেন। কাঊন্টারে আসা যাত্রীরাও তাদের পরিচ্ছন্ন কর্মকান্ড দেখে সচেতন হন এবং দোয়া করেন।

এদিকে শিক্ষার্থীদের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে নওগাঁ সরকারি কলেজের ভুগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক জানিয়েছেন- পরিবেশ অধিদপ্তরের পাশাপাশি জেলা প্রশাসন, পৌরসভা সহ সকল প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসতে হবে পরিচ্ছন্নতার কাজে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করতে। তিনি বলেন- নওগা জেলা কৃষি উতপন্ন জেলা। ময়লা আবর্জনাকে কাজে লাগিয়ে কৃষি কাজে ব্যাবহিত সার উতপাদনে সক্ষম হলেও শহরকে পরিচ্ছন্ন রাখা সম্ভম হবে। এর ফলে একদিকে পরিবেশ রক্ষা হবে অন্যদিকে আবর্জনা থেকে সৃষ্ট সার কৃষি কাজে ফলন বৃদ্ধি করবে।

সুলিশসমাজ মনে করেন শিক্ষার্থীদের এমন উদ্যোগ পৌরসভার কর্মকান্ডকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেবার মত। তাছাড়া প্রতিটি মানুষ তাদের নিজ নিজ ময়লা আবর্জনা নির্দিষ্ট স্থানে ফেললে পরিবেশ বিপর্যয় রোধ সম্ভব। তারা মনে করেন- পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার এই কাজগুলো পৌরসভার । তাই এ কাজের দ্বায় নওগা পৌরসভাকেই নিতে হবে এবং একটি সুলনির্দিষ্ট পরিকল্পনার মধ্যদিয়ে এই সমস্যার সমাধান করতে হবে।

শিক্ষার্থীরা কাজ শুরুর পুর্বে পরিচ্ছন্ন শহর গড়ে তুলাবার লক্ষ্যে অঙ্গিক্রাবদ্ধ হয়ে শপদ বাক্য পাঠের মাধ্যমে তাদের পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু করেন। পরিচ্ছন্নতা অভিযান শেষে সাধরন মানুষদের কাছে যেয়ে নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা আবর্জনা ফেলার নির্দেশিকা প্রদান করেন। অভিযান শেষে পরিস্কার করা আবর্জনার বস্তা নির্দিষ্ট স্থানে রেখে আসেন।নওগাঁবাসী এই পরিচ্ছন্ন যোদ্ধাদের সাধুবাদ জানিয়েছেন এবং পরিস্কার পরিচ্ছন্ন শহর গড়ে তোলার জন্য ধন্যবাদ দিয়েছেন।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে