আরএমপির এসআইয়ের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১, ২০২০; সময়: ৮:০৮ অপরাহ্ণ |
আরএমপির এসআইয়ের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর মতিহার থানার এসআই শাহাবুলের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে যৌন হয়রানিসহ মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। র্দীঘদিন যাবত মতিহার থানায় থাকার সুবাদে এলাকাবাসিকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে চলেছে এমন অভিযোগে তার বিরুদ্ধে আরএমপি কমিশনার ও আইজিপি কমপ্লেন সেলে লিখিত অভিযোগ করেছে এলাকাবাসী। শনিবার এ অভিযোগ দেয়া হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মতিহার থানার এসআই শাহাবুল ইসলাম দীর্ঘদিন যাবত এ থানায় থাকার কারণে এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে থেকে মাসিক টাকা নিয়ে মাদক ব্যবসা করার সুযোগ দিচ্ছে। বেশ কিছু দিন আগে ডাসমাড়ি শ্যামপুর এলাকার এবাদত, পিতা বিলাত উদ্দিনকে আজিজুলের মোড় থেকে কোন মাদক ছাড়াই আটক করে এসআই শাহাবুল। পরে আটককৃত পরিবারের কাছে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে সে। এবাদতের পরিবার সেই টাকা দিতে অস্বীকার করলে ২৬ গ্রাম হেরোইন দিয়ে মিথ্যা মামলা দেয়। একই দিনে চরশ্যামপুর এলাকার শরিফ, পিতা আকবর আলীকে কোন কিছু ছাড়ায় আটক করে থানায় নিয়ে গিয়ে ২৬ গ্রাম হেরোইনসহ মামলা দেয়।

অপরদিকে, ওই দিনে চরশ্যামপুরের মোবারোক এলকায় না থাকলেও মিথ্যা পলাতক আসামী করে দুইটি মাদক মামলা দায়ের করে তার বিরুদ্ধে। এলাকার মোস্তাকিন নামের এক রিক্সা চালককে রাস্তা থেকে আটক করে থানায় নিয়ে গিয়ে তার পরিবারের কাছে টাকা দাবি করলে দিতে না পারায় তাকে হেরোইনসহ মামলা দেয়। বর্তমানে সে জেল হাজতে আছে। এভাবেই গত ৭ দিন আগে কোলিডোর মোড় এলাকার হাসান নামের একজন কে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে হেরোইন দিয়ে মামলা দেয় এসআই শাহাবুল। এছাড়া মতিহার থানা এলাকার কিছু চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীর কাছে থেকে মাসিক টাকা নিয়ে মাদক ব্যবসা করার সুযোগ করে দিয়ে চরম আইনের অপব্যবহার করছে এসআই শাহাবুল। এলাকার চিহৃত মাদক ব্যবসায়ী যাদের কাছে থেকে মাসিক চাঁদা নেয় তার মধ্যে রয়েছে, ডাসমাড়ি মিজানের মোড় এলাকার মোছাম্মাদ গুলে বেগম অরোফে গুলে, মোবারক, মিঠু, চম্পা, চম্পার মেয়ে রিমা, রফিকের স্ত্রী শিখা বেগম, আসলাম, আক্কাস, পিচ্চি আক্তার, মিঠু। এসব মাদক ব্যবসায়ীর কাছে থেকে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময় এসআই শাহাবুল এলাকায় তাদের প্রাকাশ্যে মাদক ব্যবসা করার সুযোগ করে দিয়েছে। কিছু দিন আগে ডাসমাড়ি এলাকার চাম্পা বেগমের মেয়ে জামায় আরিফুল কে আটক করে ১০ হাজার টাকা চাম্পার বোন রিমার কাছে থেকে নেয়ার পরেও মাদকসহ মামলা দেয় আরিফুলকে।

গৃহবধূকে যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলে আরো বলা হয়েছে, সাম্প্রতিক ডাসমাড়ি এলাকার এক গৃহবধূ কুপ্রস্তাবে রাজি না হলে মাদকসহ মামলা দেয়ার হুমকি দেয়। মূলত মতিহার থানায় এসআই শাহাবুল দীর্ঘদিন যাবত থাকার সুবাদে এলাকার মাদক সিন্ডিকেটের সাথে জড়িয়ে পড়েছে। মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়ে তাদের কে আটক না করে এলাকার নিরীহ সাদামাটা মানুষদের আটক করে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে। সেই টাকা দিতে না পারলে মাদক মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছে দীর্ঘদিন যাবত। তার অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। তার বিভিন্ন অন্যায় অত্যাচারের বিষয় সুষ্ঠ তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণসহ মতিহার থানা থেকে ক্লোজড করে নেয়ার অনুরোধ জানিয়ে শনিবার বিকেলে আরএমপি পুলিশ কমিশনার, ডিসি, মতিহার জোন এবং রাজশাহীর সকল গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানে অভিযোগের কপি দিয়েছে।

এ ঘটনায় আরএমপি পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সদর) মিডিয়া মুখপাত্র আব্দুল কুদ্দুস জানান, মতিহার থানার এস আই শাহাবুলের বিরুদ্ধে এর আগেও অনেকে অভিযোগ আছে। অভিযোগগুলো তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে