‘ভুয়া তথ্য আইন’ দিয়ে ভিন্ন মত দমন করছে তুরস্ক

প্রকাশিত: মে ১১, ২০২৩; সময়: ১২:৩৯ অপরাহ্ণ |
‘ভুয়া তথ্য আইন’ দিয়ে ভিন্ন মত দমন করছে তুরস্ক

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : তুরস্কের ভুয়া তথ্য আইন বা ডিসইনফরমেশন ল মতপ্রকাশের স্বাধীনতা দমনে ব্যবহৃত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

মার্কিন মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, নির্বাচনকে সামনে রেখে তুর্কি সরকার অনলাইনে ভিন্নমত দমন বাড়িয়েছে।

সংস্থাটির গবেষক ডেবোরাহ ব্রাউন স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে বলা হয়, নির্বাচনের আগে তুরস্কের সরকার সামাজিক মাধ্যম ও স্বাধীন অনলাইন মাধ্যমগুলোর ওপর সেন্সরশিপ বাড়িয়েছে এবং নিয়ন্ত্রণ আরও শক্ত করেছে।

সরকারের সমালোচনা করায় গত মাসে এমনকি রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমগুলোর কোনো কোনোটিকে জরিমানাও করেছে সরকার।

বিরোধীপক্ষের একমাত্র মুখপাত্র ফক্সটিভিকে তাদের মাসিক আয়ের ৩ ভাগ জরিমানা করা হয়েছে বলে তথ্য দিয়েছে রিসোর্স সেন্টার অন মিডিয়া ফ্রিডম ইন ইউরোপ।

তুরস্কের এই ‘ডিইনফরমেশন ল’এর আওতায় সাংবাদিক ও সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারীদের অনলাইনে ভুল তথ্য ছড়ানোর ‘অপরাধে’ সর্বোচ্চ তিন বছরের জন্য জেল হতে পারে।

গত বছর অক্টোবরে বিলটি পাস হয় তুরস্কে। তখন থেকেই সমালোচনা ছিল- এই আইন নির্বাচনকে সামনে রেখে পাস করা হচ্ছে এবং তা বিরোধী মত দমন করতে ব্যবহৃত হতে পারে।

সমালোচকরা শুরু থেকেই বলছেন যে, আইনে ভুয়া তথ্য বলতে কী বোঝানো হচ্ছে তার সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা নেই। এই আইনে সামাজিক মাধ্যমকেও তুরস্ক কর্তৃপক্ষ চাইলে ব্যবহারকারীর তথ্য দানে বাধ্য করা হয়েছে।

ফেব্রুয়ারি মাসে তুর্কি পুলিশ ভূমিকম্প নিয়ে উসকানিমূলক পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে ৭৮ জনকে গ্রেপ্তার করে। ভূমিকম্পে তুরস্ক ও সিরিয়ায় ৫০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়।

তুরস্কের ফ্রিডম রিসার্চ অ্যাসোসিয়েশনের প্রকল্প কর্মকর্তা শাগিন এরোলু বলছেন, মৃতের সংখ্যা আরও বেশি। কিন্তু সরকারি তথ্যকে প্রশ্ন করা হলে তার ফল ভালো নাও হতে পারে।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে