নিজেদের সব ভোটারকে কেন্দ্রে আনতে চায় আওয়ামী লীগ

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২০, ২০২৩; সময়: ৯:৪২ pm |
নিজেদের সব ভোটারকে কেন্দ্রে আনতে চায় আওয়ামী লীগ

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : আওয়ামী লীগের নির্ধারিত ৪০ শতাংশ ভোটারকে নির্বাচনের দিন ভোটকেন্দ্রে আনার লক্ষ্য নিয়েছে দলটি।

এছাড়াও, আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে উন্নয়ন কাজগুলো তুলে ধরে সাধারণ মানুষকে নির্বাচনের দিন কেন্দ্রে আনতেও কাজ শুরু করেছে ক্ষমতাসীনরা। সারাদেশে পোলিং এজেন্টদের বাছাই ও প্রশিক্ষণও শুরু হয়েছে।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সর্বাত্মক প্রস্তুতি শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। দলটির একদিকে যেমন চলছে বিএনপিকে মোকাবেলা করে মাঠ দখলে রাখার কর্মসূচি, তেমনি সমান তালে চলছে নির্বাচনী কাজও।

২০০৯ থেকে এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সরকারের টানা তিন মেয়াদে সারাদেশে ব্যাপক উন্নয়ন আর জনবান্ধব কর্মসূচির কারণে আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনার প্রতি আস্থা বেড়েছে। নির্বাচনে সেসব সাধারণ মানুষের দুয়ার যাওয়া আর নিজস্ব কর্মীদের কেন্দ্রে আনতে পারলে নির্বাচনে সংখ্যা গরিষ্ঠতা ধরে রাখা সম্ভব।

সাবেক জ্যেষ্ঠ সচিব এবং আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান সমন্বয়ক কবীর বিন আনোয়ার বলেন, দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দলের সব ধরনের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগের যে নিজস্ব ৪০ শতাংশ ভোটার রয়েছে, তাদের সবাইকে ভোটের দিন কেন্দ্রে আনা দলের প্রস্তুতির বড় অংশ।

এ ছাড়াও অনলাইন ও অফলাইনে প্রচার, পোলিং এজেন্টদের বাছাই ও প্রশিক্ষণ, প্রচারের সব ধরনের কৌশল অনুশীলনসহ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যাবতীয় প্রস্তুতি নির্বাচন পরিচালনা কমিটি শুরু করে দিয়েছে।

তিনি আরও জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকারবিরোধী সব অপপ্রচারের জবাব দিতে অনলাইন যোদ্ধাও তৈরি করছে আওয়ামী লীগ। সেই সঙ্গে গেলো ২৫ বছরে বদলে যাওয়া বাংলাদেশের গল্প বলতে নানা ধরনের মাধ্যম নিয়ে কাজ করছে আওয়ামী লীগ।

কবীর বিন আনোয়ার আরও বলেন, প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত এসব কর্মী স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছে আওয়ামী লীগ। প্রতিটি জেলার স্থানীয় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে একটি করে স্মার্ট কর্নার তৈরি করা হচ্ছে। সেখানে দুইটি করে কম্পিউটার ও অন্যান্য উপকরণ রাখা হচ্ছে।

স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ থেকে স্মার্ট কর্মী বাছাই করে তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। যারা মাঠে গিয়ে দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে প্রচার চালাবে তাদেরকে প্রশিক্ষণ দেবে এসব স্মার্ট কর্মিরা। সেই সঙ্গে একটি দক্ষ ও কার্যকরী পোলিং এজেন্ট বাহিনী গড়ে তোলা হয়েছে। তারা নির্বাচনের দির বড় ধরনের ভূমিকা পালন করবে।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রস্তুতির কেন্দ্রে থাকা এই সাবেক সচিব মনে করেন, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এসব কর্মীরা নির্বাচনের পরবর্তী সময়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে