আ.লীগের অনেক প্রার্থী নৌকা হারানোর ভয়ে

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৮, ২০২৩; সময়: ১১:১৬ পূর্বাহ্ণ |
আ.লীগের অনেক প্রার্থী নৌকা হারানোর ভয়ে

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পেয়েও উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় রয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অনেক প্রার্থী। ‘নৌকা’ প্রতীক পেয়েও তা হারানোর ভয়ে দিন কাটছে তাদের। আওয়ামী লীগের শরিক ও সমমনাদের আসন ছাড়ের শঙ্কা পেয়ে বসেছে তাদের। ভোটের আগে আপাতত নৌকা প্রতীক ধরে রাখাই এসব প্রার্থীর জন্য বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেজন্য নানাভাবে জোর লবিং ও তদবিরে ব্যস্ত সময় পার করছেন এসব প্রার্থী।

আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো জানায়, সরকারবিরোধী বিএনপি ও সমমনা দলগুলোর বর্জনের মুখে এবারের নির্বাচনে ২৯৮ আসনে ৩০৪ জন প্রার্থীকে মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে ৫টি আসনে দুজন করে মনোনয়ন দেওয়া হয়। নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী দলগুলো আপাতত আলাদা প্রার্থী দিলেও শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের শরিক ও সমমনা দলগুলোর সঙ্গে আসন সমঝোতা করেই নির্বাচন হতে পারে।

এমনকি সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সঙ্গেও আসন ভাগাভাগি করে নির্বাচনের গুঞ্জন। ইতোমধ্যে ১৪ দলের শরিক নেতারা জোটপ্রধান, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। তাদের মধ্যে আসন ভাগাভাগির জন্য জোটের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র

আমির হোসেন আমুকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রে ৩০৪ জনকে দলের মনোনয়ন দেওয়া হলেও আসন ছাড়ের কারণে কপাল পুড়তে পারে আওয়ামী লীগের অনেক প্রার্থীর। এর মধ্যে দলের গুরুত্বপূর্ণ ও হেভিওয়েট প্রার্থীও থাকতে পারেন। সেই আশঙ্কায় কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে তাদের। অনেকেই পাওয়া ‘নৌকা’ ধরে রাখার লড়াইয়ে দিনরাত ব্যস্ত সময় পার করছেন। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতাদের বাসা ও অফিসে কাছে ধরনা দিচ্ছেন তারা। যে কোনো উপায়েই হোক না কেন, শরিকদের ঠেকাতে মরিয়া এসব প্রার্থী। অবশ্য শেষ পর্যন্ত জাপা বা শরিকদের সঙ্গে আসন বণ্টন না হলে নৌকার এসব প্রার্থী দুশ্চিন্তামুক্ত হবেন না।

সূত্র জানায়, বর্তমান একাদশ জাতীয় সংসদে বিরোধী দল জাতীয় পার্টিসহ সরকারের শরিক দলগুলোর ৩২ জন সদস্য রয়েছেন। এসব আসনে সবাইকে বহাল রেখেই দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে আরও বেশি আসন দাবি করছে দলগুলো। এর মধ্যে দলীয় বিরোধের কারণে জাতীয় পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ, তার ছেলে সাদ এরশাদ, মসিউর রহমান রাঙ্গাসহ বর্তমান ৫ এমপি দলের মনোনয়ন তোলেননি। তবে জাতীয় পার্টির আসন হিসেবে এই ৫টি আসনসহ বর্তমান সবকটি আসনই চায় দলটি। বর্তমান সংসদে সরকারের শরিক জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ, ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় পার্টি-জেপি মঞ্জু ও তরীকত ফেডারেশনেরও প্রতিনিধি রয়েছেন।

তার সবকটির সঙ্গে নতুন করে আরও কিছু আসন চায় দলগুলো। এর পাশাপাশি আলোচিত রাজনৈতিক দল তৃণমূল বিএনপি, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলন-বিএনএম, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টি-বিএসপি, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফও সরকারের সঙ্গে আসন ভাগাভাগির নির্বাচন চায়। এর মধ্যে তৃণমূল বিএনপির তিন শীর্ষ নেতা ছাড়াও প্রার্থী হিসেবে ৫ জন এবং বিএনএমের প্রার্থী হিসেবে ৬ জন সাবেক সংসদ সদস্যও রয়েছেন। ফলে জোটের ও নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী দলগুলোর নানা সমীকরণে অন্তত আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া চল্লিশেরও বেশি প্রার্থী দলের চূড়ান্ত মনোনয়ন হারানোর আতঙ্কে রয়েছেন। ইতোমধ্যে ঝালকাঠি-১ আসনে দলের সাবেক সদস্য বিএইচ হারুনকে বাদ দিয়ে নতুন করে বিএনপির বহিষ্কৃত নেতা শাহজাহান ওমরকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো জানায়, ১৪ দলের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন গতবার ঢাকা-৮ আসনের এমপি থাকলেও এবার সেখানে আওয়ামী লগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিমকে মনোনয়ন দেওয়ায় মেনন সেখানে আর প্রার্থী হননি। তিনি ঢাকা থেকে সরে গিয়ে বরিশালের দুটি আসনে মনোনয়ন জমা দেন।
ফলে বরিশাল-৩ (বাবুগঞ্জ-মুলাদী) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া সরদার মো. খালেদ হোসেন ও বরিশাল-২ (বানারীপাড়া-উজিরপুর) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালুকদার মো. ইউনুস আতঙ্কে রয়েছেন। দলের আরেক নেতা ফজলে হোসেন বাদশা রাজশাহী-২ আসনে এবারও প্রার্থী। ফলে এ আসনে নৌকার মনোনয়ন পাওয়া মোহাম্মদ আলী রয়েছেন ঝুঁকিতে। সাতক্ষীরা-১ আসনে বর্তমান এমপি ওয়ার্কার্স পার্টির মুস্তফা লুৎফুল্লাহের আসনে মনোনয়ন পাওয়া ফিরোজ আহমেদ স্বপন রয়েছেন চূড়ান্ত মনোনয়ন হারানোর ঝুঁকিতে।

জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনুর আসনে কাউকে দলের মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। তবে দলের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আক্তারের ফেনী-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে আলাউদ্দীন আহমেদ নাসিমকে। বগুড়া-৪ আসনে জাসদের রেজাউল করিম তানসেনের আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন হেলাল উদ্দিন কবিরাজ।

১৪ দলের শরিক তরীকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভান্ডারীর আসনে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন খাদিজাতুল আনোয়ার। এ ছাড়া এ আসনে নতুন নিবন্ধন পাওয়া বিএসপির চেয়ারম্যান সৈয়দ সাইফুদ্দিন আহমদও একই আসনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। তিনি আবার ঢাকা-১৪ আসনেও মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল। ফলে শরিকদের ও সমমনাদের ছাড়লে তাদের দুজনই চূড়ান্ত মনোনয়ন হারাতে পারেন।

সরকারের শরিক জাতীয় পার্টি-জেপি (মঞ্জু) এবারও পিরোজপুর-৩ আসনে প্রার্থী। ফলে এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া আশরাফুর রহমান ঝুঁকিতে আছেন।

এদিকে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী আলোচিত রাজনৈতিক দল তৃণমূল বিএনপি সরকারবিরোধী দল হিসেবে ভূমিকার কথা বললেও সরকারের সঙ্গে সমঝোতায় নির্বাচনে যাচ্ছে বলে আলোচনা রয়েছে। এ দলটির চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী সিলেট-৬ আসনে প্রার্থী হয়েছেন। এ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এবং দলের মহাসচিব তৈমূর আলম খন্দকার নারায়ণগঞ্জ-১ আসনে প্রার্থী হওয়ায় বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজীর চূড়ান্ত মনোনয়ন নিয়ে নানা জল্পনা চলছে।

আর দলের নির্বাহী চেয়ারম্যান অন্তরা হুদা মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে প্রার্থী হয়েছেন। এ আসনে বর্তমান এমপি বিকল্পধারার মাহী বি. চৌধুরীর মনোনয়ন বাতিল হলেও তিনি আপিল করেছেন। ফলে শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের মনোনীত মহিউদ্দীন আহমেদ শেষ পর্যন্ত প্রার্থী থাকছেন না বলে অনেকের ধারণা। এ ছাড়া দলের আরও পাঁচ প্রার্থী রয়েছেন যারা অতীতে বিভিন্ন সময় সংসদ সদস্য ছিলেন।

এবারও তাদরে সবাইকে চায় দলটি। এর মধ্যে সমঝোতা হলে লক্ষ্মীপুর-১ আসনে এম এ আউয়ালের (মনোনয়ন বাতিল হওয়ায় আপিল করেছেন) জায়গায় আনোয়ার হোসেন খান, নীলফামারী-১ আসনে এমকে আলম চৌধুরীর জায়গায় আফতাবউদ্দীন সরকার, মেহেরপুর-২ আসনে আব্দুল গনির জায়গায় আবু সালেহ নাজমুল হক, মৌলভীবাজার-২ আসনে এম এম শাহীনের জায়গায় শফিউল আলম চৌধুরী (এ আসনে বর্তমান এমপি গণফোরামের মোকাব্বির খান) ঝুঁকিতে থাকতে পাারেন।

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম কক্সবাজার-১ ও চট্টগ্রাম-৫ আসনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে কক্সবাজার-১ আসনে এরই মধ্যে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সালাউদ্দিন আহমদ হাইকোর্টের রায়ে মনোনয়ন ফিরে পেয়েছেন। আর চট্টগ্রাম-৫ আসনে বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির আনিসুল ইসলাম মাহমুদ চৌধুরী। ফলে মোহাম্মদ আব্দুস সালাম ঝুঁকিতে রয়েছেন।

এ ছাড়া আলোচিত আরেক দল বিএনএমের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহ আবু জাফর ফরিদপুর-১, মহাসচিব মো. শাহজাহান চাঁদপুর-৪ আসনে, দলের নেতা ও সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বরগুনা-২ আসনে, কণ্ঠশিল্পী ডলি সায়ন্তনী পাবনা-২ আসনে, সাবেক এমপি আব্দুল ওয়াহহাব ঝিনাইদহ-১ আসনে, দেওয়ান শানমসুল আবেদীন সুনামগঞ্জ-৪ আসনে, মামুনুর রশিদ জামালপুর-৪ আসনে, জাফর ইকবাল সিদ্দিকী নীলফামারী-১ আসনে এবং এইচ এম গোলাম রেজা সাতক্ষীরা-৪ আসনে প্রার্থী হওয়ায় এসব আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা খানিকটা দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। আর জাতীয় পার্টির বর্তমান আসনগুলোতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া নেতারাও রয়েছেন বিপাকে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র আমির হোসেন আমু বলেন, অন্যান্য দলের মতো ১৪ দল আসন ভাগাভাগির জোট নয়। জাতীয় পার্টির সঙ্গে আলোচনা করেই আসন চূড়ান্ত করা হবে। বিষয়টি নিয়ে কাজ চলছে। ১৭ তারিখের আগে জোট শরিকদের আসন ছাড়ের বিষয়ে কিছুই বলা যাচ্ছে না। আর আসন চূড়ান্ত হলে দলের সিদ্ধান্তও মানতে হবে সব প্রার্থীকে। না হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে