চা শ্রমিকদের সঙ্গে নাচলেন-গাইলেন-গল্প করলেন মমতা

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৮, ২০২৩; সময়: ১১:৪৫ পূর্বাহ্ণ |
চা শ্রমিকদের সঙ্গে নাচলেন-গাইলেন-গল্প করলেন মমতা

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে উত্তরবঙ্গে গিয়েছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে গিয়ে চা পাতা তোলার নিয়ম শিখেছেন তিনি। এরপর নিজেও শ্রমিকদের সঙ্গে নিয়ে চা-পাতা তোলেন তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) দুপুরে উত্তরবঙ্গের কার্শিয়াঙ রিসোর্টে উঠেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখান থেকে পাঙ্খাবাড়ি রোডের চা বাগানে যান মমতা। তবে আর পাঁচজন যেভাবে যান সেভাবে নয়, তিনি গেলেন চা শ্রমিকের সাজে। শিখলেন গাছ থেকে চা পাতা তোলার নিয়ম। চা শ্রমিকদের মতো করেই মাথার পিছনে বেঁধেছিলেন ঝুড়ি।

চা বাগানে গিয়ে পাহাড়ি পোশাক পরে নেন মুখ্যমন্ত্রী। এরপর চা বাগানের শ্রমিকদের সঙ্গে হাতে হাত মিলিয়ে চা-পাতা তুলতে শুরু করেন। আর তাকে চা পাতা তোলার নিয়ম শিখিয়ে দেন নারী শ্রমিকরা। প্রথমে কিছুটা অসুবিধা হলেও পরে তা রপ্ত করে নেন মুখ্যমন্ত্রী।

চা পাতা তুলতে তুলতে আশেপাশের শ্রমিকদের সঙ্গে গল্প শুরু করেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধানকে এই রূপে দেখে প্রথমে কিছুটা ঘাবড়ে গিয়েছিলেন সেখানকার নারী শ্রমিকরা। তবে সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে স্বাভাবিক হয়েছে সম্পর্ক।

কাজের মধ্যে নারী শ্রমিকরা অনেক সময় গুন গুন করে গান গেয়ে থাকেন। এটাও মুখ্যমন্ত্রীর অজানা নয়। তিনিও পাতা তুলতে তুলতে শ্রমিকদের সেই গানের কথা জিজ্ঞেস করলেন। শ্রমিকরা জানান, সেই গান তারাও গেয়ে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলে ওঠলেন, ‘গেয়ে শোনাও তো!’

শ্রমিকরা সবাই মিলে মুখ্যমন্ত্রীকে পাতা তোলার গান শোনান। তিনি মুগ্ধ হয়ে সেই গান শুনেন। এরপর চা মতো করেই কোমর ও হাত দুলিয়ে নেচে ওঠেন তিনি। যা দেখে আরও উৎসাহ পান চা শ্রমিকেরা। এ সময় হাততালি দিয়ে ওঠেন মুখ্যমন্ত্রী।

চা-পাতা তোলার পর মুখ্যমন্ত্রী ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আজ ওদের পোশাক পরে, ঝুড়ি নিয়ে আমি নিজে চা-পাতা তুললাম। চা-পাতা তোলাটা ওদের কাছ থেকে শিখলাম। এখন আমি যে কোনো চা বাগানে গিয়ে চা-পাতা তুলতে পারি। এটা আজ আমার বড় শিক্ষা হলো। পাহাড়ের সঙ্গে আমাদের রক্তের বন্ধন হয়ে গেল। হৃদয়ের মেলবন্ধন রচিত হলো। পাহাড় আমার নিজের বাড়ি হয়ে গেল। আমি কিন্তু মুখে বলি না। রক্তের সম্পর্ক তৈরি করে দেখাই। আমি আজ খুবই খুশি। আমরা সবাই এক।’

চা-পাতা তোলা শেষে বাগান শ্রমিকদের সঙ্গে নিয়ে গরম চায়ের কাপে চুমুক দিতে ভুলেননি মুখ্যমন্ত্রী। চায়ে চুমুক দিতে দিতে তার প্রশংসাও করেন মুখ্যমন্ত্রী।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে