বাগমারায় নৌকা বিরোধি আ.লীগের ২৪ নেতাকে অব্যাহতির সুপারিশ

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২, ২০২৪; সময়: ১১:০৬ অপরাহ্ণ |
বাগমারায় নৌকা বিরোধি আ.লীগের ২৪ নেতাকে অব্যাহতির সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে সরাসরি কাজ করায় সাবেক সংসদ সদস্য এনামুল হক ও উপজেলা চেয়ারম্যান অনিল কুমার সরকারসহ রাজশাহীর বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের ২৪ নেতাকে দলীয় পদে না রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশের নেতারা। মাসখানেক আগে দেওয়া কারণ দর্শানো চিঠির (শোকজ) জবাব না দেওয়ায় তাদের দল থেকে স্থায়ীভাবে অব্যাহতির সুপারিশ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

তবে অব্যাহতির সুপারিশ পাওয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য অনিল কুমার সরকার বলেন, তাদের অব্যাহতি দেওয়ার এখতিয়ার উপজেলা কমিটির নেই। এটা গণতান্ত্রিকভাবে হয়নি। অনিল কুমার সরকার বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য এনামুল হক এবং নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অনিল কুমার সরকারসহ অব্যাহতির সুপারিশ পাওয়া অন্য নেতারা হলেন, সহসভাপতি আবদুল মালেক মণ্ডল, মতিউর রহমান, আফতাব উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আল মামুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান, মকবুল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক নুরুল ইসলাম, ক্রীড়া সম্পাদক আশিকুর রহমান, আজাহারুল হক, লুৎফর রহমান, জাহানারা বেগম, মমতাজ আক্তার, জাহিদুর রহমান, আয়ূব আলী, আতাউর রহমান, জাফর আহম্মেদ, আবদুল জলিল, হাসান আলী, বাসুপাড়া ইউনিয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবদুল বারিক, ঝিকড়ার আবদুল মানিক প্রামাণিক, বড় বিহানালীর রেজাউল করিম ও দ্বীপপুরের আবদুস সাত্তার। তাঁরা সাবেক সংসদ সদস্য এনামুল হকের অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

গত নির্বাচনে রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ। অন্যদিকে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন তিনবারের সংসদ সদস্য এনামুল হক। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। মনোনয়ন নিয়ে বর্তমান সংসদ সদস্যের সঙ্গে এনামুল হকের বিরোধ দীর্ঘদিনের।

এর আগে বর্তমান সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদসহ তার ১০ থেকে ১৫ অনুসারীকে এনামুল হকের নেতৃত্বে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল। নতুন সংসদ সদস্যের আমলে একই ঘটনার শিকার হলেন, এনামুল হক ও তার অনুসারীরা।

বৃহস্পতিবার বিকেলে দলীয় কার্যালয় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর কমপ্লেক্সে উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির মাসিক সভা হয়। সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে এ সভা। দলের উপজেলা শাখার সহসভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ। সভায় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ছাড়াও জেলা কমিটির নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বক্তব্য রাখেন, দলের জেলা কমিটির সহসভাপতি ইব্রাহিম হোসেন, জাকিরুল ইসলাম সান্টু, শ্রম সম্পাদক মাহাবুর রহমান, উপজেলার সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ।

বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার বলেন, গত বছরের ২৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সভায় দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে সরাসরি কাজ করায় সাবেক সংসদ সদস্য এনামুল হকসহ ২৪ জনকে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছিল। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তাদের জবাব দিতে বলা হয়েছিল। তবে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কেউ জবাব দেননি। এ জন্য সভায় আলোচনা করে তাদের চূড়ান্তভাবে অব্যাহতির সুপারিশ জেলা কমিটির কাছে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

তিনি আরও বলেন, তারা দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন। এছাড়াও কারণ দর্শানোর চিঠির জবাবও দেননি। এ জন্য তাদের স্থায়ীভাবে অব্যাহতির সুপারিশ জেলা কমিটির মাধ্যমে কেন্দ্রে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ ছাড়া সভায় নেতারা ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন তাদের দলীয় পদে না রাখার জন্য।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে