নওগাঁ নিয়ামতপুরে মেলার আড়ালে চলছে অশ্লীল নৃত্য

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৪; সময়: ৭:১৪ অপরাহ্ণ |
নওগাঁ নিয়ামতপুরে মেলার আড়ালে চলছে অশ্লীল নৃত্য

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী জেলার নওগাঁ নিয়ামতপুরে বাহাদুরপুর ইউনিয়নের গুজিশহরের গুজিশহর উচ্চবিদ্যালয় ও মন্দিরের উন্নয়নকল্পে শুরু হয়েছে শত বছরের পুরনো প্রেম গোসাই মেলা। গত ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ইং তারিখ থেকে চলছে এ মেলা। মেলায় প্রতিদিন দুপুর থেকে ভোর রাত পর্যন্ত উচ্চস্বরে মাইক ও সাউন্ড বক্স বাজানোর কারণে বিপাকে পড়েছেন এসএসসি পরীক্ষার্থীরা। এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ছাড়াও নিয়ামতপুর থানার পোশাক পরিহিত পুলিশ সদস্য ও স্থানীয় শিশু/ কিশোরদেরকেউ দেখা গেছে এই যাত্রার নামে অশ্লীল নৃত্য দেখতে।

এ বিষয়ে নওগাঁ জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপার ও নিয়ামতপুর থানার ওসিকে বার বার এমন যাত্রার নামে অশ্লীল নৃত্য বন্ধে অভিযোগ করা হলেও মেলা কমিটি খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের কাছের লোকজন হওয়াই তাদের মেলা চলমান রয়েছে। মেলার অনুমতি প্রসঙ্গে মেলা কমিটি বলছে, তারা মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের সুপারিশে ১৫দিনের ধর্মীয় মেলা করার অনুমতি নিয়েছেন। এ মেলা চলবে আগামী ১৪ই ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত।

সরেজমিনে দেখা যায়, গত কয়েকবছর থেকে নিয়ামতপুর উপজেলার গুজিশহর উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে মেলা বসলেও এবার এই মেলা সেখান থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দুরে বসেছে। সেখানে সার্কাস পেন্ডেলে প্রদর্শিত হচ্ছে অশ্লীল নৃত্য। আর যাত্রাপালায় চলছে দর্শকদের মনোরঞ্জনে টাকার ফুলঝুরিতে মেয়েদের শরীর প্রদর্শনী। রাত ১২টা থেকে ভোর পর্যন্ত শুধুই অশ্লীলতা ও বিকৃত যৌন আবেদনে ভরা উলঙ্গ নৃত্য এবং অরুচিকর গানের আগ্রাসন। উঠতি বয়সের স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী ও গ্রাম্য যুবকসহ দূর-দূরান্তের বিকৃত মানসিকতার মানুষের উপচেপড়া ভিড়। তাদের আড্ডায় জমে উঠছে মেলা প্রাঙ্গন। ভাবার বিষয় হচ্ছে, অশ্লীল নৃত্য চলাকালিন যাত্রা প্যান্ডেলে সংশ্লিষ্ট থানার একাধিক পুলিশ সদস্যকে পোষাক পরিহিত অবস্থায় নারীদেহের অশ্লীল নগ্ন নৃত্য উপভোগ করতে দেখা যায়।

স্থানীয়রা জানান, সামনে এসএসসি পরীক্ষার মধ্যে মেলা কোনো মতেই করা ঠিক হয়নি। মেলার মাইক ও সাউন্ড বক্সের উচ্চশব্দে পরীক্ষার্থীদের সমস্যা হচ্ছে। এ ছাড়াও সন্ধ্যা হলে ছেলেরা পড়ালেখা বাদ দিয়ে মেলায় চলে যায়। চোখের সামনে এমন অশ্লীলতার মেলা চললে নিজেদের আত্মসম্মান বোধ আর থাকে না। নৃত্যের সময় নর্তকীদের সাথে আবার অনেকেই অশ্লীলতায় অংশ নিয়ে আরো অনেক বেশি টাকা ব্যয় করছে।

তারা বলেন, মেলার আয়োজক কমিটি টাকা রোজগারের জন্য পরীক্ষার মধ্যেই মেলা চালু করেছে, যা নিন্দনীয়। দ্রুত এই নোংরা মেলায় এমন অশ্লীলতা বন্ধে তারা জেলা প্রশাসক ও ডিআইজি রাজশাহী রেঞ্জ বরাবর আবেদন জানিয়েছেন।

মেলা কমিটির সভাপতি কাঞ্চন চন্দ্র সাহা ও সাধারণ সম্পাদক নারায়ন চন্দ্র প্রামানিক বলেন, ‘গ্রামীণ সংস্কৃতির উন্নয়নের জন্য মেলায় প্রতিবছর যাত্রাপালার আয়োজন করা হয়। এ বছর আমাদের মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের কথামতো মেলা পরিচালনা করছি। তিনি ১৫দিনের মেলার পারমিশন নিয়ে দিয়েছেন। তিনিই আমাদের মেলার সকল বিষয় দেখছেন। অনেকেই যাত্রাপালায় অশ্লীল নৃত্য হচ্ছে বলে অভিযোগ করছে। তবে আমাদের পুরো মেলা জুড়ে সিসি ক্যামেরা লাগানো আছে। মেলায় কোন আর অশ্লীল নৃত্য হচ্ছে না বলে জানান তারা।

নওগাঁ জেলা প্রশাসক মোঃ গোলাম মওলা বলেন, আমাদের কাছে মেলা করার অনুমতির একটি আবেদন জমা দিলে তার পেক্ষিতে আমরা ধর্মীও মেলার জন্য আগামী ১৪ই ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত অনুমতি প্রদান করেছি মেলায় যাত্রা বা সার্কাসের নামে নোংরা কিছু প্রদর্শন হলে আমরা ব্যবস্থা নেবো বলে জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে