আস্থার জায়গা খুঁজছেন মাহি

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪; সময়: ২:০৭ অপরাহ্ণ |
আস্থার জায়গা খুঁজছেন মাহি

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : প্রত্যাশা নিয়ে রাজনীতি অঙ্গনে পা রাখেন মাহি। তবে ব্যাটে বলে যেন ছক্কাটা তার ঘরে পড়েনি। সংসারেও নেমেছে অন্ধকারের ঘনঘটা। এখন ছেলেকে নিয়েই কাটছে তার সময়। বিচ্ছেদের ঘোষণার পর একাকিত্বের কথা বলেছেন চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। এবার নতুন বার্তা নিয়ে হাজির হয়েছেন সামাজিক মাধ্যমে।

সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) এক পোস্টে মাহিয়া মাহি লিখেছেন, ‘একটা আস্থার জায়গা হলেই চলবে, একটা মানুষের মতো মানুষ হলেই চলবে, একটুখানি যত্ন নিও ছেলে।’

এর আগে শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) মধ্যরাতে স্বামী রাকিব সরকারের সঙ্গে বিচ্ছেদের ঘোষণা দেন চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। আট মিনিটের বেশি সময়ের একটি ভিডিওতে তিনি জানান, কিছুদিন হলো তারা আলাদা থাকছেন। খুব দ্রুত ডিভোর্সের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করবেন।

সেই ঘোষণার প্রায় এক সপ্তাহ পর মাহি নিজের ফেসবুকে লিখেছেন একাকিত্বের কথা। বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাত ৩টায় নিজের ফেসবুকে ক্যাপশনে অভিনেত্রী লিখেছেন ‘একা একা লাগে।’

বিচ্ছেদের সেই ভিডিওতে মাহি বলেছিলেন, ‘আমি আর রাকিব আমরা আসলে খুব ভালো আন্ডারস্ট্যান্ডিং থেকেই বিয়ের সিদ্ধান্তে এসেছিলাম এবং আমরা খুব ভালোই ছিলাম। জীবনের একটা পর্যায়ে এসে মনে হয়েছে যে, আমরা আসলে দুজন দুজনের জন্য ‘না’। সে খুব ভালো একজন মানুষ। খুবই পরোপকারী একজন মানুষ। খুবই কেয়ারিং একজন মানুষ। এই পর্যন্ত যতগুলো দিন আমি কাটিয়েছি। সে আমার অনেক যত্ন নিয়েছে, আমারও অনেক টেক কেয়ার করেছে, আমার পুরো পরিবারের মানুষকে সম্মান করেছে। যে কোনো প্রয়োজনে সে পাশে দাঁড়িয়েছে। সবসময় সে আমাকে ছাতার মতো করে আগলে রেখেছিল।’

২০২১ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর গাজীপুরের রাকিব সরকারকে বিয়ে করেন তিনি। এটি তার দুজনেরই দ্বিতীয় বিয়ে। তাদের ফারিশ নামে এক বছরের একটি পুত্রসন্তানও রয়েছে।

সেই ভিডিও বার্তায় ছেলে ফারিশকে নিয়ে অভিনেত্রী বলেন, ‘আমার ছেলেকে নিয়েও আপনারা অনেকে খারাপ কমেন্টস করেন, সেগুলো দেখে মা হিসেবে আমার বুকটা ফেটে যায়। কোনো বাচ্চাকে নিয়ে এমন খারাপ কমেন্টস করবেন না, সে যেমনি হোক না কেনো দেখতে।’

এর আগে ২০১৬ সালে সিলেটের ব্যবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অপুকে ভালোবেসে বিয়ে করেন মাহি। ৫ বছর সংসার করার পর ২০২১ সালের ২২ মে বিয়ের সম্পর্ক ছিন্নের ঘোষণা দেন তিনি। তার আগে অবশ্য রাকিবের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ানোর বিষয়টি আলোচনায় আসে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে