ঢাকায় মিলছে উটের দুধের চা, দাম জানলে অবাক হবেন

প্রকাশিত: মার্চ ১৯, ২০২৪; সময়: ৩:২৫ অপরাহ্ণ |
খবর > জাতীয়
ঢাকায় মিলছে উটের দুধের চা, দাম জানলে অবাক হবেন

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : চা পছন্দ করেন না এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম। সব ঋতুতেই চায়ের আবেদন যেন ফুরাবার নয়। সাধারণত রাস্তার পাশে বা টঙের দোকানের র চা, কনডেন্সড মিল্কের বা গরুর দুধের পাউডারে তৈরি চা পাওয়া যায়।

কোন কোন দোকানে লেমন টি, গ্রিন টি ও মাসালা চা-ও পাওয়া যায়। তবে সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে সম্প্রতি অনেকেই হয়তো খেয়াল করেছেন ঢাকায় পাওয়া যাচ্ছে উটের দুধের চা।

ঢাকায় কোথায় উটের দুধের চা পাওয়া যায়? এ প্রশ্ন অনেকের। সে প্রশ্নের উত্তরও রয়েছে। ঢাকার গুলশান-২ গোল চত্বরের একটু আগেই ল্যাবএইডের উল্টো দিকে ৫২ নম্বর বাড়িতে ব্যাচেলরস এক্সপ্রেস রেস্টুরেন্ট। উটের দুধের চা সেখানেই বিক্রি হচ্ছে।

রেস্টুরেন্টটি চালু হয়েছে গত ৬ ফেব্রুয়ারি। এর কাজ চলমান থাকায় আপাতত নিচ তলায় চেয়ার-টেবিলে বসে চা পানের সুযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এ রেস্টুরেন্টের উদ্যোক্তা তরুণ দুই বন্ধু আমিনুল ইসলাম ও মাহবুব হাসান।

দেশের একটি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা বলেছেন তারা। মাহবুব হাসান উটের দুধের চায়ের ব্যাপারে বলেন, উটের দুধে বিভিন্ন উপকারিতা রয়েছে। আমাদের দেশে উটের দুধের চা পাওয়া যায় না।

তিনি আরও বলেন, যেকোনো রেস্টুরেন্ট চলে ভাইরালের ওপর। এ কারণে ভাবলাম নতুন আইটেম হিসেবে উটের দুধের চা তৈরি করলে মানুষ পছন্দ করতে পারেন। তারা এই চায়ের জন্য এখানে আসবেন, তারপর অন্য খাবারগুলো পছন্দ হলে সেগুলোও কিনবেন।

ঢাকায় উটের দুধ বিরল ও দুর্লভ হওয়ার পরও প্রতিদিন কীভাবে রেস্টুরেন্টের চাহিদা অনুযায়ী দুধ সংগ্রহ করেন তারা, এ ব্যাপারে মাহবুব বলেন, দুবাই থেকে প্যাকেট দুধ আমদানি করি আমরা।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের ক্যামেলিসাস ব্র্যান্ডের ক্যামেল মিল্ক পাউডার। অর্থাৎ, উটের দুধের গুড়া বা পাউডার। দুবাইতে আগের দিন জানালে পরদিন উটের গুঁড়া দুধ হাতে পান তারা। এ দুধের প্যাকেটের মেয়াদ এক বছর।

উটের দুধ দিয়ে চা তৈরিতে কাজী অ্যান্ড কাজী টির প্রিমিয়াস চা ব্যবহার করেন মাহবুব ও আমিনুল। চায়ের রঙে সাদার ভালোই উপস্থিতি। গাভির দুধের থেকে বেশ জোরালো গন্ধ। অনেক কড়া ও তাজা তাজা ভাব রয়েছে। চা পাতার স্বাদ ছাড়িয়ে সে চায়ের স্বাদ তীব্র।

ব্যাচেলর এক্সপ্রেস রেস্টুরেন্টটি রমজানে প্রতিদিন দুপুর ১২টা থেকে রাত পেরিয়ে ভোর ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকছে। অন্য সময়ে বেলা ১১টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

এখানে এক মগ উটের দুধের চায়ের দাম ৪০০ টাকা। আর মাসালা চা ২০০ এবং অন্যগুলো ৪০ থেকে ১৫০ টাকার মধ্যে। চা ছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন ফলের জুস এবং পিৎজা, বার্গার, পাস্তা, মাঞ্চিসসহ অন্যান্য ফাস্ট ফুড।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে