যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা থেকে ইসরায়েলি মন্ত্রীর পদত্যাগ

প্রকাশিত: জুন ১০, ২০২৪; সময়: ১০:৩২ পূর্বাহ্ণ |
যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা থেকে ইসরায়েলি মন্ত্রীর পদত্যাগ

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ইসরায়েলের যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেছেন বেনি গানৎস। রোববার (৯ জুন) রাতে জরুরি এ মন্ত্রিসভা থেকে তিনি পদত্যাগের ঘোষণা দেন। গানৎসের পদত্যাগ প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর জন্য বড় ধাক্কা হিসেবে দেখা হচ্ছে। খবর আলজাজিরা ও সিএনএনের।

সিএনএন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, বেনি গানৎস রোববার রাতে ইসরায়েলের যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

এক সংবাদ সম্মেলনে বেনি গানৎস বলেন, মন্ত্রিসভা থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত ‘কঠিন ও বেদনাদায়ক। প্রকৃত বিজয়ের দিকে এগিয়ে যেতে আমাদের বাধা দিচ্ছেন নেতানিয়াহু।

সিএনএন আরও জানিয়েছে, গাজা ইস্যুতে বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর সঙ্গে বিরোধের জেরেই বেনি গানৎস পদত্যাগ করেছেন। তিনি গাজায় যুদ্ধ পরবর্তী পরিকল্পনা ঘোষণা করতে নেতানিয়াহুকে ৮ জুন পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিলেন।

নেতানিয়াহুর প্রতি আগাম নির্বাচনের আহ্বান জানিয়ে গানৎস বলেছেন, এমন একটি নির্বাচন হওয়া উচিত যেখানে সরকার জনগণের আস্থা অর্জন ও চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সক্ষম হবে। আমি নেতানিয়াহুকে নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণের আহ্বান জানাই।

গাজা যুদ্ধের তদারকি করার জন্য গত বছর জরুরি যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা গঠন করেছিলেন নেতানিয়াহু। ৩ সদস্যের এই মন্ত্রিসভায় বেনি গানৎস অন্যতম সদস্য ছিলেন। তিনি ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে ইসরায়েলি রাজনীতিতে তাকে নেতানিয়াহুর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে দেখা হয়।

এর আগে গত মাসে জরুরি যুদ্ধকালীন সরকার ছেড়ে দেয়ার হুমকি দিয়েছিলেন বেনি গানৎস। তখন তিনি বলেছিলেন, নেতানিয়াহু গাজা যুদ্ধ পরবর্তী পরিকল্পনা প্রকাশ করতে ব্যর্থ হলে তিনি তার সরকার ছেড়ে যাবেন।

গানৎসের পদত্যাগকে স্বাগত জানিয়েছেন বিরোধী নেতা ইয়ার লাপিদ। নেতানিয়াহুর নেতৃত্বাধীন কট্টরপন্থী সরকারকে পরিবর্তনের সময় এসেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এদিকে বেনি গানৎস পদত্যাগ করলেও তাৎক্ষণিক কোনো বিপদে পড়ছেন না নেতানিয়াহু। কেননা গানৎসের দল নেতানিয়াহুর জোট সরকারের শরিক নয়। ফলে তিনি পদত্যাগ করলেও ইসরায়েলি সংসদ নেসেটে নেতানিয়াহুর সংখ্যাগরিষ্ঠতা বজায় থাকবে। বর্তমানে নেসেটের ১২০ আসনের মধ্যে ৬৪টি তার জোট সরকারের দখলে রয়েছে। তবে গানৎস সরকার ছাড়ায় ইসরায়েলি জরুরি মন্ত্রিসভায় এখন নেতানিয়াহুর লিকুদ পার্টি ব্যতীত অন্য কোনো দলের প্রতিনিধি রইল না।

গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে আকস্মিক হামলা চালায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস। ওই দিনই যুদ্ধ ঘোষণা করে ইসরায়েল। গঠন করা হয় জরুরি যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা।

গাজায় আট মাস ধরে চলা ইসরায়েলের সর্বাত্মক হামলায় ৩৭ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। গাজায় যুদ্ধবিরতি ও যুদ্ধ-পরবর্তী পরিকল্পনা ঘোষণায় আন্তর্জাতিক চাপ সত্ত্বেও যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে অনড় নেতানিয়াহু। এ নিয়ে যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভায় বিভক্তি দেখা দেয়।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে