সেপটিক ট্যাংকে নেমে ২ শ্রমিকের মৃত্যু

প্রকাশিত: জুন ১৪, ২০২৪; সময়: ১:৩৮ অপরাহ্ণ |
সেপটিক ট্যাংকে নেমে ২ শ্রমিকের মৃত্যু

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : শরীয়তপুরের ডামুড্যাতে পয়ঃনিষ্কাশন করতে গিয়ে সেপটিক ট্যাংকে নেমে দুই শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) রাত ২ টার দিকে উপজেলার দারুল আমান ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর ডামুড্যা এলাকার কবির সরদারের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে।

নিহতরা হলেন বগুড়া জেলার সোনাতলা উপজেলার পশ্চিম টেকানী এলাকার দুলু শেখের ছেলে মালেক শেখ (৪৫) ও পূর্ব টেকানী এলাকার আফসার ব্যাপারীর ছেলে লিটন বেপারী (৩৫)। তারা ডামুড্যার শিধলকুরা এলাকায় থেকে মানুষের বাড়িতে পরিচ্ছন্নতা কর্মীর কাজ করতেন।

ডামুড্যা থানা ও ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, ডামুড্যা উপজেলার দারুল আমান ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর ডামুড্যা এলাকার বাসিন্দা কবির সরদার। তার বাড়ির সেপটিক ট্যাংকের ময়লা পরিষ্কার করার জন্য পরিচ্ছন্নতা কর্মী নিযুক্ত করেন। পরিচ্ছন্নতা কর্মী মালেক ও লিটন বৃহস্পতিবার রাতে কাজ শুরু করেন। প্রথমে তারা ট্যাংকের ভেতরে পাইপ বসিয়ে পয়ঃনিষ্কাশন করছিলেন। রাত ২ টার দিকে লিটন ট্যাংকের ভেতরে নামলে হঠাৎ করেই নিচে পড়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করতে অপর শ্রমিক মালেক শেখ নামলে তিনিও আর উপরে উঠতে পারেননি। এদিকে তাদের কোন সাড়াশব্দ না পেয়ে ডামুড্যা ফায়ার সার্ভিসে খবর দেন ওই বাড়ির লোকজন।

খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে ওই দুই শ্রমিককে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের দু’জনকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ খবর পেয়ে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই দুই শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার করে শুক্রবার বেলা ১১ টার দিকে ময়নাতদন্ত করার জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

দারুল আমান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিন্টু সিকদার বলেন, ট্যাংক থেকে পয়ঃনিষ্কাশন করার সময় অসতর্ক হয়ে দুই শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনাটি দুঃখজনক। ট্যাংকে গ্যাস জমে থাকার বিষয়টি আরও সতর্কভাবে ভাবা উচিৎ। তাদের পরিবারের সদস্যদের খবর দেয়া হয়েছে।

ডামুড্যা ফায়ার সার্ভিসের টিম লিডার প্রদীপ কীর্তনীয়া বলেন, আমরা খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসি। সেপটিক ট্যাংকের ভেতর প্রচুর গ্যাস জমে ছিল। আমরা গ্যাস অপসারণ করে ওই দুই শ্রমিককে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে নেয়ার পর চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ডামুড্যা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমারত হোসেন বলেন, পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায়। এরপর হাসপাতাল থেকে মরদেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদরের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ভুক্তভোগী পরিবারের থেকে কোন অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে