কর্মকর্তাদের ‘সংযুক্ত’ বা ‘ওএসডি’ আসলে কী বার্তা দেয়?

প্রকাশিত: জুন ২৪, ২০২৪; সময়: ২:৩৯ অপরাহ্ণ |
কর্মকর্তাদের ‘সংযুক্ত’ বা ‘ওএসডি’ আসলে কী বার্তা দেয়?

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ঈদুল আজহার আগে ছেলে রিফাতের ছাগলকাণ্ডে আলোচনায় আসা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের মতিউর রহমানকে তার পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছে সরকার। একইসঙ্গে তাকে সোনালী ব্যাংকের বোর্ড থেকেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে ওঠা দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তের জন্য রোববার তিন সদস্যের একটি কমিটি করার কথা জানিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ওই কমিটি ইতোমধ্যেই কাজ শুরু করেছে বলে দুপুরে এক ব্রিফিংয়ে জানিয়েছেন দুদকের সচিব খোরশেদা ইয়াসমিন।

ঈদুল আজহায় রাজধানীর মোহাম্মদপুরের সাদিক অ্যাগ্রো থেকে মতিউর রহমানের ছেলে সিফাতের ১৫ লাখ টাকায় একটি ছাগল ছাড়াও ঢাকার বিভিন্ন খামার থেকে ৭০ লাখ টাকার গরু কিনেছেন বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও গণমাধ্যমে উঠে আসে। এরপর থেকে মতিউর রহমানের ছেলের দামি ব্র্যান্ডের ঘড়ি, গাড়ি, আলিশান জীবনযাপন; মতিউর রহমান ও পরিবারের সদস্যদের নামে রিসোর্ট, শুটিং স্পট, বাংলো বাড়ি, জমিসহ নামে-বেনামে সম্পত্তি নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে।

এমন প্রেক্ষাপটে রোববার অর্থ মন্ত্রণালয় এক প্রজ্ঞাপনে বিসিএস শুল্ক ও আবগারী ক্যাডারের কর্মকর্তা মি. রহমানকে অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগে সংযুক্ত করে।

কর্মকর্তারা বলছেন, যেহেতু তাকে কোন সুনির্দিষ্ট দায়িত্বে দেওয়া হয়নি তার মানে হলো আপাতত পরবর্তী নির্দেশ না হওয়া পর্যন্ত তিনি সেখানে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বা ওএসডি হিসেবে থাকবেন।

‘সংযুক্ত করা’ কিংবা ‘ওএসডি’ কী বার্তা দেয়

সরকারের সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তাদের কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে সংস্থাপন বা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের জন্য বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বা ওএসডি করার বিধান আছে।

এর বাইরে অন্য বিভাগ, সংস্থা বা মন্ত্রণালয়ের জন্য ওএসডির বদলে সংযুক্ত করার পদ্ধতি চালু আছে।

আবার ওএসডি বা সংযুক্ত করা সবসময় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসাবে করা হয় না। অনেক সময় ইতিবাচক কারণেও করা হয়ে থাকে।

যেমন– কারও পদোন্নতি হলো কিন্তু পদ খালি নেই। তখন তার বেতন ভাতা যাতে বন্ধ না হয় সেজন্য তাকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বা ওএসডি করা হয়। তবে রাজনৈতিক কারণে ওএসডি করে অনেক কর্মকর্তাকে কাজের বাইরে রাখার একটি প্রক্রিয়াও আছে, যাকে সরকারি কর্মকর্তারা শাস্তিমূলক পদক্ষেপ বলেই মনে করেন।

যদিও ২০২০ সালের জানুয়ারিতে হাইকোর্ট এক রায়ে বলেছে সরকারি কোনো কর্মকর্তাকে ১৫০ দিনের বেশি অফিসার অন স্পেশাল ডিউটিতে (ওএসডি) রাখা যাবে না।

জানা গেছে যেসব কারণে কর্মকর্তাদের ওএসডি বা সংযুক্ত করা হয় তার মধ্যে আছে – অবসরে যাওয়ার পূর্বে প্রেষণে (অন্য কোন বিভাগে বা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত) থাকলে, কোনো কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেওয়ার পর পরবর্তী পদায়নের আগে, উচ্চশিক্ষা ও লিয়েনের জন্য, তিন মাসের বেশি কেউ ছুটি নিলে, এনডিসি কোর্সের জন্য, বিভাগীয় মামলা ও গুরুতর অসুস্থতার কারণে, জনপ্রশাসন থেকে অবসর নিতে চাইলে এবং জনস্বার্থ ও প্রশাসনিক কারণে।

এছাড়া কেউ কোন বিভাগে সংযুক্ত থাকলে সেখান থেকে অবসর দিতে গেলে তাকে ওএসডি করা হয়।

এর বাইরে কারও বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ ওঠলে এবং সরকার সেই অভিযোগ তদন্ত করার প্রয়োজন বোধ করলে ওই কর্মকর্তাকে ওএসডি কিংবা মন্ত্রণালয়ে সংযুক্ত করে থাকে।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে