তানোর কামারগাঁ ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদ করিম

প্রকাশিত: জুলাই ৬, ২০২৪; সময়: ৮:১৬ অপরাহ্ণ |
তানোর কামারগাঁ ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদ করিম

সাইদ সাজু, তানোর : রাজশাহীর তানোর উপজেলার আসন্ন কামারগাঁ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির) উপনির্বাচনে তরুন উদীয়মান বিশিষ্ট সমাজ সেবক আওয়ামী লীগ নেতা মাসুদ করিমের উপর আস্থা রাখতে চান ইউপি বাসীর আপামর জনতা। মাসুদ করিমের বাড়ি বারোঘরিয়া গ্রামে। সে মৃত পিয়ার উদ্দিনের পুত্র। সে নির্বাচিত হতে পারলে প্রয়াত চেয়ারম্যান ফজলে রাব্বি ফরহাদের রেখে যাওয়া অসম্পূর্ণ কাজগুলো সম্পূর্ণ করবেন বলেও দৃঢ় প্রত্যায় ব্যক্ত করেন।

জানা গেছে, বিগত ২০২১ সালে কামারগাঁ ইউনিয়ন পরিষদ ইউপির নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রথমবারের মত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ফজলে রাব্বি ফরহাদ । ফরাদ চলতি বছরের ৩০ এপ্রিল মারা যান। গত জুন মাসের শেষ দিকে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির) উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন। তফসিল অনুযায়ী গত ৪ জুন বৃহস্পতিবার মনোনয়ন ফরম জমা দেয়ার শেষ দিন ছিল এবং যাচাই বাছাই হয় গত ৫ জুলাই শুক্রবার। আগামী ১০ জুলাই প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ও ১১ জুলাই প্রতীক বরাদ্দ এবং ২৭ জুলাই ইভিএমে ভোট গ্রহণ হবে।

তরুণ উদীয়মান মাসুদ করিম সহ সাবেক চেয়ারম্যান মোসলেম আলী প্রামানিক ও সাবেক ইউপি আওয়ামী লীগের সম্পাদক সুফি কামাল মিন্টুর মনোনয়ন ফরম বৈধ ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা । এতিন প্রার্থীই যাচাই বাছাইয়ে বৈধ হন। তবে প্রতীক বরাদ্দের আগে গণসংযোগ সহ প্রচার প্রচারনা করা যাবে না। এজন্য প্রার্থীরাও প্রচার প্রচারনায় তেমন ভাবে নেই। বিভিন্ন মোড় ও বাজারে সৌজন্য সাক্ষাৎ করছেন ভোটারদের সাথে।

ভোটারদের ভাষ্য, মোসলেম আলী প্রামানিক বিগত ২০১১ ও ২০১৬ সালে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি নৌকার বিরুদ্ধে বিগত ২০২১ সালে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ভোট করে পরাজিত হয়েছিলেন। তিনি উপনির্বাচনে পুনরায় ভোট করবেন।

এদিকে মাসুদ করিম উপনির্বাচনে ভোট করার জন্য দীর্ঘ কয়েক মাস ধরে বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে অনুদান দিয়ে আসছেন। শুধু তাই না ইউপির গ্রামে পাড়া মহল্লায় যে কোন সমস্যা হলে ছুটে যাচ্ছেন মাসুদ করিম। দলীয় বিভিন্ন সভায় যোগদান করতেও দেখা গেছে তাকে। ভোটারদের অনেকটাই মন জয় করতে সক্ষম হয়েছেন এই তরুন প্রার্থী। ইউপির ভোটার মুনতাজসহ বেশ কিছু প্রবীন নবীন ভোটারেরা জানান, মাসুদ করিম প্রথম বারের মত ভোটের মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। সে দীর্ঘ দিন ধরে বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রম করে আসছেন। সবচেয়ে বড় ব্যাপার মাসুদ করিম ভোটারদের বলছেন প্রয়াত চেয়ারম্যান ফজলে রাব্বি ফরহাদের অসম্পূর্ণ কাজগুলো তিনি করবেন। ভোটে জয় পরাজয় থাকবে। কিন্তু অন্য প্রার্থীরা প্রয়াত চেয়ারম্যানের কোন নাম পর্যন্ত নিচ্ছে না। অথচ মাসুদ করিম সাব বলছেন ভোটে জয় হয় বা না হয় যতদিন সুস্থ আছি প্রয়াত চেয়ারম্যানের নামেই সামাজিক উন্নয়ন মুলুক কাজগুলো করে যাব। সুতরাং সে তো প্রয়াত চেয়ারম্যানের নাম নিচ্ছে। অন্যরা তো সে কথা ভুল করেও বলছেনা।

মাসুদ করিম জানান, যেহেতু স্থানীয় নির্বাচন উন্মুক্ত করা হয়েছে। এখানে দলীয় ভাবে কোন সমর্থন বা দলীয় প্রতীক নেয়। এজন্য নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি। হার জিত থাকবেই। আমি একটাই কারনে নির্বাচন করছি যদি ইউপিবাসী আমাকে নির্বাচিত করেন তাহলে প্রয়াত চেয়ারম্যান ফজলে রাব্বি ফরহাদের অসম্পূর্ণ কাজগুলো সম্পূর্ণ করব এবং জনগণের কাছে তার দেয়া কথাগুলো বাস্তবায়ন করায় আমার মুল লক্ষ্য। আমি ইউপি বাসীকে বলতে চায় আগামীর স্মার্ট ইউনিয়ন পরিষদ গঠনের জন্য তরুনদের বিকল্প নেই।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে