টেস্ট ক্রিকেটকে বাঁচাতে যে পরামর্শ দিলেন কামিন্স

প্রকাশিত: জুলাই ৯, ২০২৪; সময়: ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ |
খবর > খেলা
টেস্ট ক্রিকেটকে বাঁচাতে যে পরামর্শ দিলেন কামিন্স

পদ্মাটাইমস ডেস্ক :  ফ্র্যাঞ্চাইজি আর টেস্ট ক্রিকেটের জন্য আলাদা উইন্ডোর দাবি করেছেন অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক প্যাট কামিন্স। আইপিএলের মতো কাড়ি কাড়ি অর্থের টুর্নামেন্টে খেলার জন্য মুখিয়ে থাকেন বিশ্বের বেশিরভাগ ক্রিকেটার। যার জন্য একই সময়ে হওয়া আন্তর্জাতিক খেলা নিয়ে অনেক ক্রিকেটারের মধ্যেই অনীহা থাকে বলে মন্তব্য করেন ক্যামিন্স। তবে, বর্তমান সময় দু’টোই খুব গুরুত্বপূর্ণ তাই এমসিসি’র কাছে এমন প্রস্তাব করেছেন অজি অধিনায়ক।

আইপিএলের জনপ্রিয়তার পর ক্রিকেট বিশ্বের প্রায় প্রতিটা দেশেই ছড়িয়ে পড়ছে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট। আরব আমিরাত, কানাডা কিংবা যুক্তরাষ্ট্র, ক্রিকেটে খুব একটা সমৃদ্ধ না হলেও বড় পরিসরে তারা এখন আয়োজন করছে এ ধরণের টুর্নামেন্ট। জনপ্রিয়তার সঙ্গে বেশ লাভবান হচ্ছে আয়োজকরা। ক্রিকেটারদেরও ঝোক চোখে পড়ার মতো।

তবে, এতে ক্ষতির মুখে পড়ছে আর্ন্তজাতিক ক্রিকেট। সবচেয়ে বেশি ঝুকিতে টেস্ট ক্রিকেট। মোটা অঙ্কের অর্থের এতো ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগের ভিড়ে অবসর নেয়ার নজিরও নেহায়েত কম নয়। আর টেস্ট তো খেলতেই চান না অনেকে। যদিও এ সমস্যা সমাধানে এবার এমসিসির কাছে একটা প্রস্তাব তুলে ধরেছেন অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক প্যাট কামিন্স।

অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক প্যাট কামিন্স বলেন, ‘মোটা অঙ্কের অর্থের কারণে অনেকের কাছেই জাতীয় দলের চেয়ে ফ্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের গুরুত্ব বেশি। অনেক দেশই ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট দিয়ে বেশ লাভবান হচ্ছে। আমি যদি এ টুর্নামেন্ট খেলতে চাই, তাহলে জাতীয় দলের বেশির ভাগ খেলা মিস করব। অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট হয় নভেম্বর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত। এ সময় অল্প সময়ে আমাদের অনেক ম্যাচ খেলতে হয়। যেটা অন্য কেউ খেলে না। আমরা যদি টেস্ট আর আইপিএলের জন্য নির্দিষ্ট একটা উইন্ডো পেতাম তাহলে অনেক ক্রিকেটারেরই সিদ্ধান্ত নিতে সহজ হতো।’

যদিও লন্ডনে আয়োজিত এমসিসি ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট কানেক্টস অনুষ্ঠানে কামিন্স শুধু নিজেদের কথা ভেবে বললেও, তার এমন প্রস্তাব মনে ধরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের সিইও জন গ্রেভের। তার মতে সব দেশের ক্ষেত্রে এমনটা হলে বাঁচবে টেস্ট ক্রিকেট।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের প্রধান নির্বাহী জন গ্রেভ বলেন, ‘আমি সমর্থন দিচ্ছি। ব্যাপারটা এভাবে হতে পারে যে সিডনি বা ওয়েলিংটনে একটা টেস্ট শুরু হলো। তারপর কলকাতা অথবা ঢাকায় একটা হলো। পরেরটা লর্ডসে বা নিউল্যান্ডসে। আর শেষে কেনিংটন ওভালে। এভাবে আট দল ২৪ ঘন্টার মধ্যে চারটা টেস্টে অংশ নিয়ে ফেলবে।’

প্যাট কামিন্স-জন গ্রেভ, দু’জনেরই প্রস্তাবে সমর্থন দিয়েছেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার চেয়ারম্যান মাইক বার্ড। টেস্ট ক্রিকেটের উন্নতিতে আইসিসি’র সব ধরণের সিদ্ধান্তে পাশে থাকা আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে