অবসরে যাচ্ছেন বিশ্বজয়ী ডি মারিয়া

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৮, ২০২৩; সময়: ১২:১১ অপরাহ্ণ |
খবর > খেলা
অবসরে যাচ্ছেন বিশ্বজয়ী ডি মারিয়া

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : কাতার বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মাধ্যমে দীর্ঘ ৩৬ বছরের আক্ষেপ ঘচিয়েছে আর্জেন্টিনা। একই সঙ্গে পূর্ণতা পেয়েছে লিওনেল মেসির ক্যারিয়ার।

আর আর্জেন্টাইনদের এই স্বপ্ন যাত্রায় মেসির সঙ্গে অন্যতম নায়ক হিসেবে ছিলেন আনহেল ডি মারিয়া। তবে আওলবিসেলেস্তেদের চূড়ান্ত অর্জনের এই সারথীকে আর বেশিদিন দেখা যাবেনা জাতীয় দলের জার্সিতে।

বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা আজ শুরু করেছে পরবর্তী বিশ্বকাপের জন্য নিজেদের অভিযান। ২০২৬ বিশ্বকাপের টিকিট নিশ্চিতের জন্য আজ নাতিন আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্বে আজ মাঠে নেমেছিল ইকুয়েডরের বিপক্ষে। সে ম্যাচে সাফল্যও পেয়েছে মেসির দল।

মেসির নেতৃত্বে নতুনদের নিয়ে খেলতে নেমে শুরতে কিছুটা ছন্দহীনতায় থাকলেও ঠিকয় জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে লিওনেল স্কালোনির দল।

প্রথমার্ধ্ব গোলশূন্য ড্র হওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধ্বে ঠিকই খোলস থেকে বেরিয়ে আক্রমণের ধার বাড়ায় আলবিসেলেস্তেরা। আর ম্যাচের শেষদিকে ৭৮ মিনিটের সময় দুর্দান্ত এক ফ্র কিকে গোল করে দলের জয় নিশ্চিত করেন ফুটবল জাদুকর মেসি।

ম্যাচের ৮৯ মিনিটে মেসি ওঠে যাওয়ার সময় আজ অধিনায়কের বাহুবন্ধনী পরিয়ে দিয়ে গেছেন সতীর্থ ডি মারিকাকেই। তবে ইএসপিএন আর্জেন্টিনার খবর, জাতীয় দলের জার্সি তুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এই বিশ্বজয়ী উইঙ্গার।

কাতার বিশ্বকাপের পরই ডি মারিয়া জানিয়েছিলেন এবার আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসরে যেতে চান তিনি। তবে জানিয়েছিলেন জাতীয় দলের জার্সি তুলে রাখার আগে আরও কিছুদিন খেলে যেতে যান। তবে তা খুব বেশি দিন নয়।

ইএসপিএন জানিয়েছে, ২০২৪ কপা আমেরিকার পরই আর্জেন্টিনার ফুটবল থেকে অবসর যাবেন ডি মারিয়া। পরবর্তী বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব খেললেও মূল অভিযানে আর তাকে পাবে না আলবিসেলেস্তেরা।

আর্জেন্টিনার হয়ে ডি মারিয়ার অভিষেক হয়ে ২০০৮ সালে প্যারাগুয়ের বিপক্ষে। এরপর দলটির অনেক অর্জনের সাক্ষী হয়েছেন তিনি। সে বছরই অলিম্পিকে স্বর্ণ জয় থেকে শুরু করে আরও অনেক অর্জনে দলের ভূমিকা রেখেছেন তিনি।

তার গোলেই এক যুগের আক্ষেপ ঘচিয়ে কোপা আমেরিকা শিরোপা জিতেছিল আর্জেন্টিনা। এমনকি গত বছর কাতার বিশ্বকাপের ফাইনালেও গোল করেছিলেন তিনি।

এছাড়াও গুরুত্বপূর্ন ম্যাচ গুলোতে অতিমানবীয় পার্ফর্ম্যান্সে দর্শকদের মন জয় করেছেন তিনি। এসব কারণেই ভক্ত-সমর্থকরা তাকে মনে রাখবে যুগ যুগ ধরে।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে