ভোটার খরায় শেষ হলো দ্বিতীয় ধাপের ভোট, চলছে গণনা

প্রকাশিত: মে ২১, ২০২৪; সময়: ৪:২৭ অপরাহ্ণ |
ভোটার খরায় শেষ হলো দ্বিতীয় ধাপের ভোট, চলছে গণনা

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে ১৫৬টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। মঙ্গলবার (২১ মে) সকাল ৮টায় শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

এবারের নির্বাচনে অধিকাংশ উপজেলার ভোটকেন্দ্রে ছিল ভোটার খরা। এ ছাড়া বিভিন্নস্থানে গুলিবর্ষণ, সংঘর্ষ ও প্রিসাইডিং কর্মকর্তা আটকসহ কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনার মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন।

সারা দেশে ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল অনেক কম। এ নির্বাচনে ১৫৬টি উপজেলায় ১৩ হাজার ১৫৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ১০ হাজার কেন্দ্রে সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ১৬ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট কাস্টিং হয়েছে। দুপুর ১টায় নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. জাহাংগীর আলম এ তথ্য জানান।

দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে রাজশাহী, রাজবাড়ী, লক্ষ্মীপুর, লালমনিরহাট, ফরিদপুর, কুমিল্লা, পটুয়াখালী, নেত্রকোণা, জামালপুরসহ অধিকাংশ জেলার উপজেলায় সারাদিন ভোটার উপস্থিতি দেখা গেছে। বিভিন্ন স্থানে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে।

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার দুই চেয়ারম্যানপ্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে গুলিবর্ষণ ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার সকাল ৯টায় বালিয়াকান্দির নবাবপুর ইউনিয়নের বড়ই চারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। ওই একই ভোটকেন্দ্রে ইউসুফ মণ্ডল (৬২) নামে এক ভোটারের মৃত্যু হয়েছে।

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আচরণবিধি ভঙ্গ করে কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগে ঘোড়া প্রতীকের চেয়ারম্যানপ্রার্থী জামিল হাসানের এক কর্মীকে তিন দিনের জেল দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এদিকে রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে নয়জন আহত হন। মঙ্গলবার সকালে গোপালপুর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ঘোড়া প্রতীকের চেয়ারম্যানপ্রার্থী আব্দুল মজিদ সরদার ও মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রার্থী শরীফুজ্জামান শরীফের সমর্থদের মাঝে ভোটকেন্দ্র দখলের চেষ্টাকালে এ সংঘর্ষ ঘটে।

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে জাল ভোট দিতে গিয়ে কিশোর-কিশোরী আটক হয়েছে। সকাল পৌনে ৯টার দিকে উপজেলার সহশ্রাম-ধুলদিয়া ইউনিয়নের ফুলবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র এ ঘটনা ঘটে।

নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা নির্বাচনে ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে প্রবেশে বাধাসহ হুমকি-ধামকি দেওয়ার অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেতার দুইজনকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে বাগাতিপাড়া উপজেলার ফাগুয়ারদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের সামনের রাস্তায় এই দুইজনকে ডিবি পুলিশ আটক করে।

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে পশ্চিম কাজিরকজীল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র দখলের চেষ্টার ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। এ কেন্দ্রে বেলা ১১টার দিকে চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকরা কেন্দ্রে হামলা চালিয়ে দখলের চেষ্টা করে। পরে পুলিশের ধাওয়ায় হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

তবে সিলেটের তিনটি উপজেলায় ভোটার উপস্থিতি ভালো ছিল। অধিকাংশ ভোটকেন্দ্রে সকালে ভোটার কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটার উপস্থিতি কিছুটা বেড়েছে। এসব কেন্দ্রে পুরুষ ভোটারের পাশাপাশি নারী ভোটারদের উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মত।

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সাংবাদিক আহতের ঘটনা ঘটেছে। প্রকাশ্যে ভোট দেওয়ার ভিডিও ধারণ করতে যাওয়ায় মোটরসাইকেল প্রতীকের চেয়ারম্যানপ্রার্থী হাজী মুহাম্মদ ইদ্রিস ফরাজির সমর্থকদের হামলায় অন্তত ১০ জন সাংবাদিক আহত হয়েছেন। বেলা ১১টার দিকে উপজেলার সেনেরচর ইউনিয়নের ফরাজী দারুস সুন্নাহ হাফিজিয়া মাদরাসা কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

এ ছাড়া নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জালভোট দেওয়ায় এক যুবককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় জালভোট দিতে সহযোগিতা করায় ২ সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ও ৪ পোলিং অফিসারকে আটক করা হয়। উপজেলার দেওটি ইউনিয়নের নান্দিয়াপাড়া বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

দুপুর ১টার দিকে সাংবাদিকদের দেওয়া এক বক্তব্যে ইসি সচিব বলেছেন, সারাদেশে চলমান দ্বিতীয় ধাপের ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে এখন পর্যন্ত বড় ধরনের কোনো সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি। ভোটকেন্দ্রের বাইরে ছোটখাটো দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। যার সংখ্যা মাত্র ১৮টি। এ ছাড়া বিচ্ছিন্নভাবে দুটি ঘটনা ঘটেছে।

রাজবাড়ীতে একজন ভোটার ভোটকেন্দ্রে লাইনে দাঁড়ানো থাকা অবস্থায় সম্ভবত স্ট্রোক করেছেন। ৫৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তিকে পরে হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। আর রাজশাহীতেও একজন আনসার ভিডিপি কর্মী স্ট্রোক করে মারা গেছেন। এসব মৃত্যুর সঙ্গে নির্বাচনী সহিংসতার কোনো ধরনের সম্পর্ক নেই।

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী প্রথম ধাপে ১৩৯টি উপজেলায় ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে গত ৮ মে। আজ দ্বিতীয় ধাপে ১৫৬টি উপজেলার ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। এরপর তৃতীয় ধাপে ১১২টি উপজেলায় আগামী ২৯ মে এবং চতুর্থ ধাপে ৫৫টি উপজেলায় আগামী ৫ জুন ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এর মধ্যে প্রথম ধাপে ২২টি, দ্বিতীয় ধাপে ২৪টি, তৃতীয় ধাপে ২১টি ও চতুর্থ ধাপে ২টি উপজেলায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে