পুঠিয়ায় মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে গণস্বাক্ষর করে এলাকাবাসীর অভিযোগ

প্রকাশিত: জুলাই ৯, ২০২৪; সময়: ৮:৪৯ অপরাহ্ণ |
পুঠিয়ায় মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে গণস্বাক্ষর করে এলাকাবাসীর অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, পুঠিয়া (রাজশাহী) : রাজশাহী পুঠিয়ায় যুব সমাজকে মাদক থেকে বাঁচাতে এক মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ গ্রামবাসীদের মধ্য প্রায় ১৮২ জন ব্যক্তির গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করে গত বৃহস্পতিবার এলাকাবাসী অভিযোগ দায়ের করেছে পুঠিয়া থানা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরাবর।

জানা গেছে, ওই মাদক ব্যবসায়ীর নাম রানা। বর্তমানে সে পুঠিয়া উপজেলার গন্ডগোহালী গ্রামে দুই বছর যাবত বসবাস ও মাদক ব্যবসা করে আসছে। সে আগে স্থায়ী বাসিন্দা ছিলেন রাজশাহী শহরের পার্শবর্তী মাদারদিয়াড় চর এলাকায়। অভিযোগ ও গণস্বাক্ষর করা একাধিক ব্যক্তিরা বলছেন রানার মাদক ব্যবসার বিরুদ্ধে কথা বললে হত্যার হুমকিও দেওয়া হয়। রানা বলে বেড়ায় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে এসব করে। আমাদের কিছুই করতে পারবে না। এর কয়েকদিন আগে ওই এলাকা থেকে একটি ধারালো অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়। এমনকি ওই এলাকার স্থানীয় কয়েকজনকে ম্যানেজ করে রানা এসব করছে বলে দাবি তাদের। গভীর রাত অব্দি বহিরাগত মাদক সেবীরা সেখান থেকে মাদক সংগ্রহ করতে যাতায়াত করে। এছাড়াও ওই এলাকায় মাদক ব্যবসা বন্ধ করতে অভিযোগ পত্রে সই করেছে, একজন সাবেক এমপি, সাবেক পৌর মেয়র, বর্তমান কাউন্সিলর ও ওই ওয়ার্ডের বর্তমান ইউপি সদস্যসহ আরও অনেকে।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য সাহাবুল ইসলাম বলেন, এই মাদক ব্যবসায়ীদের কারণে এলাকায় অনেক সাধারণ মানুষেরা চুরি ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত হয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন সময় দেখা যায় মানুষের বাড়ির হাঁস মুরগি ছাগলসহ নানান রকম জিনিস হারিয়ে যায়। এছাড়াও প্রতিনিয়ত বহিরাগতরা রাতের বিভিন্ন সময় ওই এলাকায় আনাগোনা করতে দেখা যায়।

এসব বিষয়ে ওই এলাকার বাসিন্দা ও পুঠিয়া উপজেলা দুর্নীতি বিরোধী কমিটির সভাপতি আব্দুস সাত্তার মাস্টার বলেন, এসব মাদক কারবারই আমাদের এলাকায় আগে ছিল না। হঠাৎ করে ওই লোকটি দুই বছর আগে এখানে বাড়ি কিনে বসবাস ও মাদক ব্যবসা শুরু করে। তারপরে এলাকায় কৃষকের পেঁয়াজ রসুন সহ নানান রকম জিনিসপত্র হারিয়ে যেতে শুরু করে। আমি আমার এলাকায় মাদক মুক্ত দেখতে চাই।

এ বিষয়ে পুঠিয়া থানার অফিসার (ওসি) সাইদুর রহমান জানান, অভিযোগ পেয়ে সাথে সাথে অভিযান চালিয়েছি। মাদক ব্যবসায়ী রানা এলাকা ছেড়েছে। তাকে এলাকায় পেলে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

এবিষয়ে পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ কে এম নূর হোসেন নির্ঝর বলেন, এ ধরনের একটি অভিযোগ পেয়েছি। সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মহলকে জানানো হয়েছে আশা করি খুব দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে